World’s Third Largest Diamonds Discovered in Botswana – বোতসোয়ানায় আবিষ্কৃত পৃথিবীর তৃতীয় বৃহত্তম হীরা

বোতসোয়ানার প্রেসিডেন্ট মোগউইটসি মাসিসির হাতে বিখ্যাত সেই ৩য় বৃহত্তম ১,০৯৮ ক্যারেটের হীরাটি; যা হীরা উত্তোলণকারী প্রতিষ্ঠান ‘দেবসোয়ানা’ সন্ধান পায়।

Botswana’s president, Mokgweetsi Masisi, inspects Debswana’s find. Photograph: Monirul Bhuiyan/AFP/Getty Images

পৃথিবীর অন্যতম বৃহত্তম ও দুর্লভ এই হীরাটির ওজন ১,০৯৮ ক্যারেট। ২০২১ সালের ১লা জুনে দেশটির রাজধানী গ্যাবরন থেকে ৭৫ মাইল দূরে অবস্থিত জোয়ানেং খনিতে সন্ধান পায়। এই খনিটি দেবসোয়ানা কোম্পানি দ্বারা পরিচালিত হয়, যা দেশটির সরকার ও ডায়মন্ড জায়ান্ট ডি বিয়ারস কোম্পানি যৌথভাবে পরিচালিত করে আসছে। আর তাদের অর্জিত অর্থের প্রায় ৮০ শতাংশই লভ্যাংশ, রয়্যালটি ও কর বাবদ পায় বতসোয়ানার সরকার।

১৯৮২ সাল থেকে জোয়ানেং খনি অফিসিয়ালি চালু হওয়ার পর থেকে প্রতি বছর ১২.৫ মিলিয়ন থেকে ১৫ মিলিয়ন ক্যারেট পর্যন্ত হীরা উত্তোলন করে আসছে। ১৯৬৭ সালের পর থেকে এটাই তাদের সবচেয়ে বড় হীরার সন্ধান পায়। এখনো এর নামকরণ করা হয়নি। দৈর্ঘে ৭৩ মিলিমিটার ও প্রস্থে ৫২ মিলিমিটারের এই হীরাটি ২৭ মিলিমিটার পুরু।

এটিই এখন বর্তমানে ৩য় বৃহত্তম রত্ন মানের হীরা; যেখানে ১৯০৫ সালে দক্ষিন আফ্রিকার প্রিমিয়ার খনিতে আবিষ্কৃত ৩,১০৬ ক্যারেট ওজনের ‘কুলিনান’ হীরাটি পৃথিবীর সর্ববৃহৎ এবং ২০১৫ সালের বোতসোয়ানার কারোউই খনিতে আবিষ্কৃত ১,১০৯ ক্যারেট ওজনের ‘লেসেডি লা রোনা’ হীরাটি পৃথিবীর ২য় বৃহত্তম রত্নমানের (Gem Quality) আনকাট বা রাফ (Rough) হীরা।

রাফ ডায়মন্ড বা হীরা ২ ভাগে ভাগ করা হয় – প্রথমত রত্ন মান দ্বিতীয়ত রত্নমানের কাছাকাছি বা ইন্ডাস্ট্রিয়াল মান; যা নির্ধারন করে এর রং, স্বচ্ছতা, সাইজ ও আকারের উপর। তাই সব রাফ হীরা হিসেব করলে এই হীরাটি বর্তমানে ৫ম সর্ববৃহৎ হীরা। ব্রাজিলে আবিষ্কৃত ৩,১৬৭ ক্যারেট ওজনের সার্জিও ইন্ডাস্ট্রিয়াল মানের হীরাটি পৃথিবীর সর্ববৃহৎ হীরা।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *